বিদ্যমান সম্ভাব্য এবং লাভজনক শিল্প ইউনিট / উদ্যোগের পণ্য বৈচিত্র্য এবং গুণমান উন্নয়নের জন্য ভারসাম্য, আধুনিকীকরণ, প্রতিস্থাপন এবং সম্প্রসারণ (বিএমআরই) এর জন্য আর্থিক পরিষেবা প্রদান করে।

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আমদানি বিকল্প এবং রপ্তানিমুখী শিল্পে বিনিয়োগ করে। দারিদ্র্য বিমোচন এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির জন্য ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগে (এসএমই) অর্থায়ন। অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম সংগ্রহের জন্য অর্থায়ন। গৃহস্থালীর যন্ত্রপাতি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহের জন্য নির্দিষ্ট আয়ের গোষ্ঠী এবং পেশাদারদের অর্থায়ন প্রসারিত করে। অ্যাপার্টমেন্ট/বাড়ি, বাণিজ্যিক স্থান, দোকান বা অন্যান্য রিয়েল এস্টেট পণ্য নির্মাণ বা ক্রয়ের জন্য ঋণ প্রদান করে। অগ্রাধিকার খাতে বিনিয়োগ করা যেমন: বি.এম.আর.ই বিদ্যমান শিল্প ইউনিটের রপ্তানিমুখী শিল্পবিকল্প শিল্প আমদানি করুনস্থানীয় কাঁচামালের উপর ভিত্তি করে শিল্পঅবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পবিদ্যুৎ উৎপাদনফার্মাসিউটিক্যাল শিল্পহাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারপরিবেশ বান্ধব প্রকল্পক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ (এসএমই)

Scroll to Top
জনাব মোঃ মহিউদ্দিন
এভিপি, (রিকভারী)

মরহুম হাফিজ আব্দুল মতিন ও মরহুম তাজকেরা খাতুনের সন্তান জনাব মোঃ মহিউদ্দিন ১৯৭৬ সালে লক্ষ্মীপুরে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। জনাব মহিউদ্দিন ঢাকা কলেজ থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি অক্টোবর-২০১৪ সালে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে কর্পোরেট ও এইচআর বিভাগে সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার ও অ্যাসিস্ট্যান্ট কোম্পানি সেক্রেটারি হিসাবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি সহকারী ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে পদোন্নতি পান। বর্তমানে তিনি কোম্পানীর রিকভারী এবং মনিটরিং সেকশনে কাজ করছেন। আর্থিক খাত, সাধারণ বীমা এবং উৎপাদনমুখী কোম্পানির বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

পিএলএফএল-এ যোগদানের পূর্বে তিনি সিটি গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ঢাকা ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডে সহকারী মহাব্যবস্থাপক ও অ্যাসিস্টেন্ট কোম্পানি সেক্রেটারী হিসেবে কাজ করেছেন। এরপর তিনি খানসন্স গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান সোনারগাঁও টেক্সটাইল লিমিটেডে (পিএলসি) সিনিয়র ব্যবস্থাপক এবং কোম্পানি অ্যাফেয়ার্স ও শেয়ার বিভাগের ইন-চার্জ হিসেবে কাজ করেন। তিনি পুঁজিবাজার এবং সেক্রেটারিয়েট সম্পর্কিত বিভিন্ন সেমিনার এবং কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি তার নিজ জেলা লক্ষ্মীপুর ও নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কাজের সাথে যুক্ত আছেন।

জনাব ফরিদ আহমেদ
এভিপি এন্ড ম্যানেজার অব ব্রাহ্মণবাড়িয়া ব্রাঞ্চ

জনাব মোঃ আব্দুল হামিদ ও মিসেস মদিনা খাতুনের সন্তান জনাব ফরিদ আহমেদ ১৯৭৭ সালে কিশোরগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে তার দীর্ঘ ১৭ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি ২০১০ সালে সিনিয়র অফিসার হিসেবে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদান করেন এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া ব্রাঞ্চের সেকেন্ড ম্যান হিসেবে দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত হন। ২০১৯ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদানের পূর্বে তিনি ইন্টিগ্রেটেড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট এফোর্ট, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড ও ইউনাইটেড ফাইন্যান্স লিমিটেডের শাখা ও প্রধান কার্যালয়ে বিভিন্ন পদে কাজ করেছেন।

জনাব ফরিদ আহমেদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিসাববিজ্ঞানে বিবিএস (সম্মান), এমবিএ (একাউন্টিং) এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর অধীনে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

জনাব খান মোস্তফা মনোয়ার
এভিপি, পুনরুদ্ধার এবং পর্যবেক্ষণ

জনাব খান মোস্তফা মনোয়ার ১৯৭৮ সালে মানিকগঞ্জের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বিবাহিত এবং দুই কন্যা সন্তানের গর্বিত পিতা। একজন ক্যারিয়ার ব্যাঙ্কার হিসেবে যার ১৭ বছরেরও বেশি ব্যাংকিং অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি ২০০৪ সালে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডে অফিসার হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। ১৫ বছর যাবৎ ব্রাক ব্যাংকের বিভিন্ন শাখা এবং প্রধান কার্যালয়ে কাজ করার পর, তিনি ২০১৯ সালে দি সিটি ব্যাংক লিমিটেডে সহকারী ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে যোগদান করেন। তারপর নভেম্বর, ২০২১ সালে সহকারী ভাইস প্রেসিডেন্ট (রিকভারি অ্যান্ড মনিটরিং উইং) হিসাবে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগ দেন। তিনি থাইল্যান্ড ও ইন্দোনেশিয়া সফর করেছেন।

জনাব মোঃ হাফিজুর রহমান চৌধুরী
এভিপি এন্ড ইনচার্জ অব সিলেট ব্রাঞ্চ

মোঃ আব্দুল ওয়াহিদ চৌধুরী ও মরহুম আছিয়া খাতুন চৌধুরীর ছেলে জনাব মোঃ হাফিজুর রহমান চৌধুরী ১৯৭৭ সালে হবিগঞ্জের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ২০০৬ সালে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডের এসএমই বিভাগের অফিসার হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তার ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডের এসএমই বিভাগে জোনাল ম্যানেজার হিসেবে ০৪ বছর কাজ করার পর, তিনি আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের এসএমই বিভাগের ইনচার্জ হিসেবে ০২ বছর কাজ করেন। এরপর তিনি ২০১২ সালে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডের সিলেট শাখার অপারেশন অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগে প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে পদোন্নতি পান।

বর্তমানে, তিনি প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডের সিলেট শাখার ইনচার্জ হিসেবে কাজ করছেন এবং ২০১৬ সাল থেকে তিনি প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ লিমিটেডের সিলেট শাখার ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জনাব সুফি মোঃ আবিদুর রহমান
এভিপি (রিকভারি এবং মনিটরিং)

সুফি মৌলভী মকবুলুর রহমান ও রহিমা খাতুনের পুত্র জনাব সুফি মোঃ আবিদুর রহমান ১৯৬৯ সালে কুমিল্লার দাউদকান্দিতে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বি.কম (অনার্স) ও এম.কম (ম্যানেজমেন্ট) ডিগ্রী অর্জন করার পর PLFL-এর গঠন কালিন ১৯৯৬ সালে এক্সিকিউটিভ হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তিনি কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর তিনি প্রিন্সিপাল অফিসার, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসাবে পদোন্নতি পান। তিনি প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে ক্রেডিট অ্যান্ড মার্কেটিং, লিগ্যাল অ্যান্ড রিকভারি সেকশনে কাজ করেছেন। তিনি সেপ্টেম্বর ৫, ২০২১ থেকে জুলাই ২৭, ২০২২ পর্যন্ত কোম্পানীর মিরপুর শাখার ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি কোম্পানীর প্রধান কার্যালয়ে লিগ্যাল অ্যান্ড রিকভারি সেকশনে কাজ করছেন।

মোঃ হুমায়ুন রশীদ
এসএভিপি এন্ড হেড অব এসএমই

আর্থিক খাতে দীর্ঘ ১৫ বছরের অভিজ্ঞ জনাব মোঃ হুমায়ুন রশীদ ২০০৬ সালে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে যোগদানের মাধ্যমে তার কর্মজীবন শুরু করেন। প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদানের পূর্বে তিনি ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড ও আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকে বিভিন্ন কৌশলগত সিনিয়র পদে কাজ করেন। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ফিন্যান্স এবং ব্যাংকিংয়ে অনার্সসহ ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন।

জনাব হুমায়ুন-এর ক্রেডিট রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, এসএমই ফাইন্যান্স, প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট, মার্কেটিং, সেলস, কনভেনশনাল এবং ইসলামিক প্রোডাক্ট, পদ্ধতি, পলিসি এবং রেগুলেশন বিষয়ে জ্ঞান এবং কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

তার কর্মজীবনে, তিনি এসএমই, কর্পোরেট ব্যাংকিং, ক্রেডিট রিক্স, ব্যাংকে মুখ্য ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, পণ্য উন্নয়ন, ইসলামিক ব্যাংকিং, প্রকল্প অর্থায়ন ইত্যাদি বিষয়ে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, কর্মশালা এবং সেমিনারে অংশ গ্রহন করেছেন।

মোহাম্মদ শাজামান
এসএভিপি এন্ড ম্যানেজার, চট্টগ্রাম শাখা

প্রয়াত ডাঃ মোঃ শাজাহান ও শাহিদা বেগমের সন্তান জনাব মোহাম্মদ শাজামান ১৯৭৭ সালে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সরকারি কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ঢাকা থেকে ২০০৩ সালে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর তিনি ২০০৬ সালে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ঢাকা থেকে ফিন্যান্সে মাস্টার্স অফ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর তিনি ২০০৬ সালে সহকারী ব্যবস্থাপক হিসেবে ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড-এ যোগদান করেন এবং প্রধান কার্যালয় এবং চট্টগ্রাম অফিসে ৪ বছর কাজ করেন। তিনি ন্যাশনাল হাউজিং, চট্টগ্রাম শাখায় ২ বছর শাখা ব্যবস্থাপক হেসেবে কাজ করেন।

তিনি ২০১০ সালে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডের চট্টগ্রাম শাখায় সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) হিসাবে যোগদান করেন এবং ২০১৬ সালে অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট (এভিপি) হিসাবে পদোন্নতি পান। পরবর্তীতে ২০১৮ সালে তিনি চট্টগ্রাম শাখার ব্যবস্থাপক হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

জনাব শাজামান সন্দ্বীপ ও চট্টগ্রামে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমের সাথে যুক্ত আছেন। তিনি লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং ম্যাজেস্টিক সিটির সহ-সভাপতি হিসেবে জড়িত ছিলেন। তিনি সন্দ্বীপ এডুকেশন সোসাইটি, চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাজ করছেন।

পবিত্র কুরআন শরীফ পড়া, ভ্রমণ এবং সামাজিক কাজে তার আগ্রহ রয়েছে।

জনাব এ. সাঈদ চৌধুরী
ভিপি এন্ড হেড অব আইসিটি

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে দীর্ঘ ২৬ বছরেরও বেশি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জনাব এ. সাঈদ চৌধুরীর ২০১০ সালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রধান হিসেবে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগ দেন।

প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদানের পূর্বে তিনি প্ল্যাইমার (এইচকে) লিমিটেড, বার্ডস বাংলাদেশ এজেন্সিস লিমিটেড এবং ইউএসডিএ (ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অব এগ্রিকালচার) যা ইউএস এমব্যাসির একটি কনসার্ন-এর তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের বিভিন্ন পদে কাজ করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করার পর তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ও নেটওয়ার্কিং বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। রেড হ্যাট, ডেবিয়ান, উবুন্টু এবং মিন্ট ইত্যাদিসহ বিভিন্ন লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনে তার অভিজ্ঞতা রয়েছে।

জনাব সাঈদ জাতীয় যুব হকি চ্যাম্পিয়নশিপ এবং ময়মনসিংহ জেলা/ময়মনসিংহ জেলা স্কুল জাতীয় স্কুল হকির একজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় ছিলেন। তিনি স্কুল এবং কলেজ পর্যায়ে ফুটবল এবং ক্রিকেটেও ভালো খেলোয়ার ছিলেন।

জনাব সৈয়দ মনির হোসেন
ভিপি এন্ড সিএফও

জনাব সৈয়দ মনির হোসেন ২০০৮ সালে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে এসপিও হিসাবে ফিনান্স এবং অ্যাকাউন্টস বিভাগে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি এভিপি এবং এসএভিপি ও সিএফও (সিসি) হিসেবে পদোন্নতি পান। ২০২২ সাল থেকে তিনি ভিপি এন্ড সিএফও হিসেবে কাজ করছেন। আর্থিক খাতে তিনি দীর্ঘ ২৩ বছর যাবৎ কাজ করছেন। পিএলএফএল-এ যোগদানের পূর্বে তিনি ব্র্যাক এবং ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডে ম্যানেজার (অডিট) হিসেবে সাড়ে নয় বছর কাজ করেছেন। ফাইনান্স, একাউন্টস ও ট্রেজারীর পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা কাজে দীর্ঘ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জনাব মনির ঢাকা ট্যাক্সেস বার অ্যাসোসিয়েশনের একজন সদস্য। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংক, ডব্লিউএসডিএ নিউজিল্যান্ড, আর্নেস্ট ইয়ং মালয়েশিয়া, আইসিএবি এবং আইসিএসবি কর্তৃক আয়োজিত বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, সেমিনার এবং কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন। জনাব মনির পিএলএফএল-এর ডিক্যামেলকো হিসেবে কাজ করছেন এবং নিয়মিত ক্যামেলকো কনফারেন্সে অংশ গ্রহন করছেন। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ক্ষেত্রে তিনি এমকম (অ্যাকাউন্টিং) এবং এমবিএ (ফাইন্যান্স) ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়াও তিনি সিএ (ইন্টার) এবং এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

জনাব মোহাম্মদ আলী ফয়সাল
এসভিপি এন্ড ইনচার্জ অব সি এন্ড এম

জনাব মোহাম্মদ আলী ফয়সাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিন্যান্সে বিবিএ (সম্মান) এবং ব্যাংকিংয়ে এমবিএ ডিগ্রী অর্জন করেন। জনাব ফয়সাল ২০২২ সাল থেকে সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ক্রেডিট ও মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ২০১৪ সালে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড-এ সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে যোগদান করেন। পিএলএফএল-এ যোগদানের পূর্বে তিনি ইউনিয়ন ক্যাপিটাল লিমিটেডে কর্পোরেট ফাইন্যান্স সেকশনে ৭ বছরেরও বেশী সময় কাজ করেছেন।

জনাব সুবাস চন্দ্র মৌলিক এফসিএস
ইভিপি এন্ড হেড অব কর্পোরেট এন্ড এইচআর ও কোম্পানি সচিব
জনাব সুবাস চন্দ্র মৌলিক এফসিএস ২০০৮ সালে সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং কোম্পানী সেক্রেটারি হিসেবে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদান করেন। পরবর্তীকালে, তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে উন্নীত হন এবং কোম্পানি সেক্রেটারির দায়িত্বের পাশাপাশি কোম্পানির কর্পোরেট ও এইচআর বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। এরপর পর্যায়ক্রমে তিনি সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে পদোন্নতি পান। তিনি ৩১-ডিসেম্বর-২০১৫ সাল থেকে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ক্যামেলকো হিসাবে কাজ করছেন। জনাব মৌলিক একজন চার্টার্ড সেক্রেটারি এবং ইনস্টিটিউট অফ চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অফ বাংলাদেশের (আইসিএসবি)-এর ফেলো সদস্য। তিনি অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড-এ ইন্টার্নশীপ কোর্স করেন। মিঃ মৌলিক ১৯৯১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সামাজিক বিজ্ঞানে (সমাজবিজ্ঞান) এম.এস.এস ডিগ্রি অর্জন করেন এবং ২০০৮ সালে নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ থেকে ফিন্যান্সে এমবিএ সম্পন্ন করেন। পিএলএফএল-এ চাকুরীর পাশাপাশি তিনি অক্টোবর, ২০১৬ থেকে আইসিএসবি এর জার্নাল ও পাবলিকেশন সাব কমিটির সদস্য এবং পেশাদার জার্নাল ‘দ্য চার্টার্ড সেক্রেটারি’-এর সম্পাদকীয় পর্ষদের সদস্য হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। এর আগে তিনি ২০০৩ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত এই পদে কাজ করেছেন। তিনি সাহিত্য এবং সংস্কৃতি উন্নয়ন সংস্থা, ফরিদপুর এর একজন সদস্য। প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডে যোগদানের পূর্বে, তিনি জিএসপি ফাইন্যান্স কোম্পানি (বাংলাদেশ) লিমিটেডে ডেপুটি কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে আড়াই বছর এবং অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডে সহকারী কোম্পানি সচিব এবং শেয়ার বিভাগের প্রধান হিসেবে প্রায় সাড়ে নয় বছর কাজ করেন। তিনি ক্যাপিটাল মার্কেট, মানি লন্ডারিং এবং কর্পোরেট ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কিত বিষয়ে বিভিন্ন সেমিনার ও কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন।
ডঃ রেজওয়ানুল হক খান
স্বতন্ত্র পরিচালক

ড. রেজওয়ানুল হক খান বর্তমানে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ইনস্টিটিউট অফ বিজনেস এ্যাডমিনিস্ট্রেশন (আইবিএ), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আইবিএ-তে বিবিএ প্রোগ্রামের সমন্বয়কের পদেও অধিষ্ঠিত। জনাব রেজওয়ানুল হক খান বিভিন্ন উদ্ভাবনী পণ্য/পরিষেবার পরামর্শক/প্রধান গবেষক হিসেবে a2i এর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছেন। তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি মন্ত্রণালয় কর্তৃক সূচিত বেশ কয়েকটি আইসিটি প্রকল্পের সাথেও জড়িত।

ড. রেজওয়ান ইউনিভার্সিটি অফ ওয়ারউইক, যুক্তরাজ্য থেকে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন এবং ডিজিটাল উদ্ভাবন এবং উদ্যোক্তার ক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন। তিনি আইবিএ থেকে এমবিএ এবং ওআইসি’র একটি সহায়ক অঙ্গ সংস্থা আইইউটি থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তিতে বিএসসি (অনার্স) করেছেন। ড. রেজওয়ানুল হক খান ব্যাচেলর প্রোগ্যাম এবং পিএইচডি’র জন্য কমনওয়েলথ এবং ওআইসি বৃত্তিসহ তার একাডেমিক কর্মজীবনে বেশকিছু বৃত্তি পেয়েছেন। জনাব রেজওয়ান যশোর বোর্ড থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধা তালিকায় দশম স্থান অধিকার করেন।

ড. রেজওয়ানুল হক খান ১৫ বছরেরও বেশি সময় যাবৎ একাডেমিয়ায় আছেন। আইবিএ-তে যোগদানের আগে তিনি দেশের বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা পেশায় অধিষ্ঠিত ছিলেন এবং সক্রিয়ভাবে গবেষণায় জড়িত রয়েছেন। গবেষণার ক্ষেত্রে ডিজিটাল প্রযুক্তির রূপান্তরমূলক সম্ভাবনার সাথে সম্পর্কিত বিষয়ে তার আগ্রহ রয়েছে। কারণ এটি আধুনিক ব্যবসা এবং উদ্যোক্তাকে পরিব্যাপ্ত করে। তার গবেষণা ডিজিটাল উদ্ভাবন, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে (ই-ব্যাংকিং, ই-কমার্স ইত্যদি) এবং বিওপি মার্কেটে ভোক্তাদের আচরণের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। তার সাম্প্রতিক নিবন্ধগুলি শীর্ষস্থানীয় জার্নাল এবং আন্তর্জাতিক আউটলেটগুলিতে প্রকাশিত হয়েছে যেমন জার্নাল অফ বিজনেস এ্যাডমিনিস্ট্রেশন, জার্নাল অফ বিজনেস স্ট্যাডিজ, ইউরোপিয়ান জার্নাল অফ বিজনেস এন্ড রিসার্চ এবং ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ম্যানেজারিয়াল স্ট্যাডিজ এন্ড রিসার্চ। তিনি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সেমিনার ও কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন।

ড. রেজওয়ান এসোসিয়েশন অফ ইনফরমেশন সিস্টেমস (এআইএস), আইবিএ এ্যালামনাই এ্যাসোসয়িশন (আইবিএএএ), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ্যালামনাই এসোসিয়েশন, আইইউটি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন (আইইউটিএএ), ঝিনাইদহ এক্স-ক্যাডেট এসোসিয়েশন (জেএক্সসিএ) এবং ক্যাডেট কলেজ ক্লাব (সিসিসিএল)-এর আজীবন সদস্য।

Dr. A.A.Mahboob Uddin Chowdhury
Independent Director

Professor Dr. A. A. Mahboob Uddin Chowdhury has been teaching in the Department of Finance, University of Dhaka for the last 35 years. He is currently a Selection Grade Professor of the Department. Securing tenth position from the Dhaka Board in his HSC Examination from Commerce group, Dr. Chowdhury directly got admitted in the Department of Finance in 1978. After completing B. Com. (Hons.) and M. Com. Degrees from the Department with outstanding results he went to Nagoya University, Japan for higher studies on Monbusho Scholarship. He obtained Master of Economics Degree (Major in Business Administration) having All “A” Grades from Nagoya University, Japan. The Master Thesis titled “An Insight Into the Optimal Capital Structure”. His Ph.D. thesis titled “Agency Relationships and Capital Structure of Public Limited Companies: The Cases of Japan and Bangladesh”. His areas of interest are Corporate Governance, Capital Structure and Financial Markets”. Dr. Chowdhury participated in various seminars and workshops at home and abroad.

He has 35 research papers to his credit published in local and international journals. He received Dean’s Academic Award as Best Researcher by the Faculty of Business Studies, University of Dhaka. He also received “Sonali Bank Silver Medal” for standing 2nd position in Banking Diploma Examination, Part-1 and completing the examination in one chance in 1985.

Dr. Chowdhury has extensive experience in various administrative capacities such as Chairman, Department of Finance, Member of Finance Committee, University of Dhaka, Director MBA & MBA (Evening Program), Department of Finance, University of Dhaka. He was a member of the Finance Committee and Academic Council of BOU. He is a Life member of DUAA, FAA and JUAAB. He is currently the member of the Academic Committee of BICM.

Dr. Chowdhury served IFIC Bank Limited as Probationary Officer and Officer Grade-1 for one and a half years.

Mrs. Nargis Anwar
Director

Mrs. Nargis Anwar Daughter of A.M. Aminul Islam Khan and Samsun Nahar Begum and wife of Md. Anwarul Haque, Nargis Anwar is the Chairperson of a reputed real estate Company Living Plus Limited. She is a Director of Premier Leasing & Finance Limited and Sponsor of Mercantile Bank Limited. She joined Real Estate, Banking and Insurance businesses after completion of her education in 1981.

মিসেস ফারজানা আর শাহাবুদ্দিন
পরিচালক
মরহুম এম এ বাশার ও মরহুম রেহানা বাশারের সুযোগ্যা কন্যা মিসেস ফারজানা আর শাহাবুদ্দিন গোপালগঞ্জের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি প্যাসিফিক অ্যাসোসিয়েটস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব মোঃ শাহাবুদ্দিন এর সহধর্মিনী। শিক্ষা শেষ করার পর তিনি এয়ার-কন্ডিশনার ব্যবসায় সম্পৃক্ত হন। তিনি প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডের একজন পরিচালক। এছাড়াও তিনি ইউনাইটেড কন্টিনেন্টাল লিমিটেডের পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন। তিনি জেনারেল ওভারসিজ কোম্পানি -এর একজন ব্যবস্থাপনা অংশীদার।
জনাব জুনেদ আহমেদ
উদ্যোক্তা পরিচালক

গত ১৯ জুলাই ২০২৩ তারিখে অনুষ্ঠিত প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের ৭১-তম সভায় জনাব জুনেদ আহমেদ কোম্পানীর চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন। প্রয়াত হাজী আব্দুর রাজ্জাক ও মিসেস রাজিয়া বেগমের সুযোগ্য সন্তান জনাব জুনেদ আহমেদ ১৯৭৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শেষে তিনি বিভিন্ন ব্যবসায় নিয়োজিত হন। জনাব আহমেদ প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড এবং প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ লিমিটেডের একজন উদ্যোক্তা পরিচালক। তিনি প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ ব্রোকিং লিমিটেড এবং ম্যানর প্রপার্টিজ লিমিটেডের পরিচালক হিসেবেও কাজ করছেন। তিনি মেসার্স আব্দুর রাজ্জাক এবং মেসার্স জুনেদ আহমেদ -এর স্বত্বাধিকারী।

Barrister Mehnaz Mannan
Director

Barrister Mehnaz Mannan, only daughter of Mr. Abdul Mannan (Late) and Mrs. Nilufar Mannan (Late) was born in a well reputed family. Barrister Mehnaz completed her Post Graduation with honors in Political Science from the University of Dhaka. She achieved Bar at Law from Lincon’s Inn, London. Barrister Mehnaz Mannan is a Director of Premier Leasing & Finance Limited and Sponsor Director of Premier Leasing Securities Limited. She is also Director of Bengal Air Lift Limited, Air Flight Services Limited, Bengal MR Global Sourcing Limited, Bengal Travel & Tours Limited and United Aviation Enterprise Limited, CEO of Bengal NFK Textiles Limited and Deputy Managing Director of Bengal Airlift Limited. She is the owner of Solution De Legal, a Law firm. She is also associated with another Law firm Khandakar Mahbubuddin Associates.

Barrister Mehnaz Mannan, wife of Barrister Nasiruddin Ahmed Ashim has one daughter Ms. Ahreen Mannan Ahmed and one son Master Ahiam Mannan Areez Ahmed.

ইঞ্জি. এ.জেড.এম. আকরামুল হক
উদ্যোক্তা পরিচালক

ইঞ্জি. এ.জেড.এম. আকরামুল হক জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯৫৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন। বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা (সেশন ১৯৭২-৭৩) থেকে স্নাতক সম্পন্ন হওয়ার পর, তিনি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ক্যাডার হিসেবে ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড, বিএসইসি, নারায়ণগঞ্জ এবং বাংলাদেশ রেলওয়েতে অল্প সময়ের জন্য কাজ করেন। তিনি কিংডোম অব সৌদি এরাবিয়ার কিং ফাহদ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পোর্টের সাথেও কাজ করেছেন। তিনি ১৯৮৬ সালে নিজস্ব ব্যবসা শুরু করেন এবং ১৪০ মেগাওয়াট ময়মনসিংহ পাওয়ার স্টেশন (ফেজ-১ এবং ফেজ-২) এবং জিকে ইরিগেশন পাম্পিং স্টেশন (পুনর্বাসন)সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন বড় বড় নির্মাণ প্রকল্পে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। তিনি কনটেক ইঞ্জিয়ারিং এন্ড ট্রেডিং লিঃ ও মাল্টিলিংক টেকনিকাল সার্ভিসেস লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং টেকনো-কন এর একজন অংশীদার। তিনি প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড এবং প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ লিমিটেড এর উদ্যোক্তা পরিচালক এবং প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ ব্রোকিং লিমিটেড এর একজন পরিচালক হিসাবে কাজ করছেন।

জনাব হক ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি), বাংলাদেশ সোসাইটি অফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার্স (বিএসএমই) এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ নেভাল আর্কিটেক্টস এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশের একজন আজীবন ফেলো। ১৯৮৫ সালে, তিনি রয়্যাল ইনস্টিটিউশন অফ নেভাল আর্কিটেক্টস (আরআইএনএ) এর একজন সহযোগী এবং সোসাইটি অফ নেভাল আর্কিটেক্টস এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ার্স (এসএনএমই) এর সদস্য হন।

একজন অসামান্য ক্রীড়াবিদ হিসেবে মিঃ হক ছিলেন ইউনিভার্সিটি ব্লু। তিনি ইইউসিএসইউ-এর নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত আছেন। তিনি দেওয়ানগঞ্জ সমিতি, ঢাকার সভাপতি এবং জামালপুর সমিতি, ঢাকার সহ-সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তিনি ধানমন্ডি ক্লাব লিমিটেড, উত্তরা মডেল ক্লাব লিমিটেড এবং আর্মি গলফ ক্লাবের সদস্য।

ইঞ্জি. এম. রবিউল হক
উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস-চেয়ারম্যান

জনাব মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক এবং মিসেস আয়েশা বেগমের সুযোগ্য সন্তান ইঞ্জি. এম. রবিউল হক, ১৯৫৫ সালে সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। এরপর তিনি কিনশো কর্পোরেশন (একটি জাপানি ট্রেডিং কোং) এর বাংলাদেশ অফিসের ব্যবস্থাপক হিসেবে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত কাজ করেন। এরপর তিনি ব্যবসায় নিজেকে নিয়োজিত করেন এবং একজন বিচক্ষণ ও দক্ষ ব্যবসায়ী হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেন।

মিঃ হক প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড এর একজন উদ্যোক্তা পরিচালক এবং প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ লিমিটেডের একজন উদ্যোক্তা। এছাড়াও, তিনি একটি স্বনামধন্য ইঞ্জিনিয়ারিং কাম ট্রেডিং কোম্পানি ক্রিয়েটিভ ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন।

আবু সাদেক মোঃ সোহেল
স্বতন্ত্র পরিচালক ও চেয়ারম্যান

জনাব আবু সাদেক মোঃ সোহেল ১৯৫২ সালে নেত্রকোনার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন ক্যারিয়ার ব্যাংকার যার ব্যাংকিং অভিজ্ঞতা ৩৯ বছরেরও বেশি। তিনি ১৯৭৭ সালে সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের সিনিয়র অফিসার হিসাবে তার ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। বিভিন্ন শাখা এবং প্রধান কার্যালয়ে ২৪ বছর কাজ করার পর, তিনি ২০০১ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক মহাব্যবস্থাপক পদে উন্নীত হন। তিনি ২০০৫ সালে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর হন এবং কয়েক মাস পরে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকে যোগদান করেন। ২০০৫ সালে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকের চাকুরী থেকে স্বেচ্ছা অবসর গ্রহণের পর তিনি এসআইবিএল-এ উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক,অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবংএসআইবিএলসিকিউরিটিজ লিমিটেডেরসিইও হিসেবে ৮ বছর কাজ করেছেন। তিনি অক্টোবর, ২০১৩ সালে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে যোগদানকরেন এবং ২০১৬ সালে পূর্ণ মেয়াদ সফলভাবে সম্পন্ন করেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, চীন, হংকং, থাইল্যান্ড, ভারত এবং নেপালসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রশিক্ষণ/সেমিনারে অংশগ্রহণ করেছেন।

জনাব আবু সাদেক মোঃ সোহেল প্রায় দুই দশক যাবৎ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ -এর (আইবিবি) সাথে যুক্ত। বর্তমানে তিনি ঢাকার উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ প্রোগ্রামের পার্টটাইম ফ্যাকাল্টি। তার মেয়ে ডাঃ ফারজানা সোহেল, এফসিপিএস, এফআরসিএস একজন প্রখ্যাত চক্ষু বিশেষজ্ঞ।

জনাব মোঃ ফজলুর রহমান
ব্যবস্থাপনা পরিচালক

ব্যাংকিং এবং আর্থিক খাতে দীর্ঘ ৩৬ বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জনাব মোঃ ফজলুর রহমান ১৯-মার্চ-২০২২ তারিখে প্রিমিয়ার লিজিং এন্ড ফাইন্যান্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি জুন, ২০১৮ থেকে মে, ২০১৯ পর্যন্ত হজ্ব ফাইন্যান্স কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। জনাব রহমান তার প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা (অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর) শেষ করার পর, ১৯৮৩ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক রিক্রুটমেন্ট কমিটি (বিআরসি) কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে পূবালী ব্যাংক লিমিটেডে যোগদানের মাধ্যমে তার ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। এরপর তিনি ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড এবং এনসিসি ব্যাংক লিমিটেডের শাখা ও প্রধান কার্যালয়ে বিভিন্ন পদে কাজ করেন। জনাব রহমান ইনস্টিটিউট অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ থেকে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা (পর্ব-১) সম্পন্ন করেন। তিনি বিভিন্ন প্রশিক্ষণ/সেমিনারে অংশগ্রহণের জন্য যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, হংকং, চীন, মালয়েশিয়া এবং কানাডা ভ্রমন করেন। জনাব রহমান ১৯৬১ সালে জন্মগ্রহণ করেন।